All Golpo Are Fake And Dream Of Writer, Do Not Try It In Your Life

ভগ আমার কুক্কুট বোন-1


জুলি রবি নিহা। তিন ভাই বোন। যথক্রমে একুশ বিশ আর ১৫ বছর বয়স।জুলি সবার বড় বিধায় সবার উপর একটু প্রভাব খাটাতে চায়। যে কোন সময় এটা ওটা করতে আদেশ করে রবি আর নিহাকে। রবি আর নিহা চোট হওয়ায় কখনো নিষেধ করেনা। তাছাড়া জুলি প্রচন্ড আদর করে রবি আর নিহাকে। ভাই বোনের দিকে সবসময় খেয়াল রাখে জুলি। পড়াশুনা থেকে শুরু করে খাওয়া দাওয়া সব জায়গায়।

জুলি অত্যান্ত সুন্দরী। দুধে আলতা গায়ের রং, টানা টানা চোখ, লম্বা চুল সব মিলিয়ে নজর কাড়ার মত। তাই রুপের অহংকার ও আছে প্রচুর। সহপাঠিদের মধ্যে প্রেমর প্রস্তাব দিয়ে জোতার বাড়ি খেয়েছে অনেকে।বড় লোকের মেয়ে, তার উপর এমন রুপের অধিকারী হলে যা হবার আর কি?বাড়িতে পড়ার টেবিল থেকে শুরু করে শোবার রুমে পর্য়ন্ত জুলির কতৃত্ব। এখন পড়তে বস, এখন খেতে এস,গোসল সেরে নাও, কলেজে যাও ইত্যাদি। নিহা একটু বেশি ভয় পায় জুলিকে। রবি তেমন কেয়ার করেনা। তার পরও বোনের সামনে কিছু বলার সাহস এখনো হয়নি। জুলি যাই বসে মাথা পেতে নেয়, যদিও পেচনে দাজ্জাল, ঝাসি কি রানী, এমন আরো অনেক উপাদি দেয়া হয়ে গেছে।

আজও অন্য দিনে মত পড়তে বসেছে সবাই। একটা টেবিলে রবি আর নিহা মুখামিখি বসেছে, আর জুলি সবার হেড হিসেবে অন্য ধারে বসেছে। রবির আজ পড়ায় মন বসছেনা। নিহা রোজকার মত একধ্যানে পড়ছে। রবি মাঝে মাজে নিহার দিকে আবার মাঝে মাঝে জুলির দিকে আড় চোখে তাকচ্ছে। বাইয়ের দিকে কোন খেয়াল নেই। জুলি তা খেয়াল করল।

জুলিঃ=কিরে তোর কি হল, পড়চিসনা যে?

রবিঃ= আমতা আমতা করে,কই আমি ত পড়ছি দিদি।

জুলিঃ=আমাকে বোকা বানাতে আসিসনা।

রবিঃ= সরি দিদি। বাইয়ের দিকে নজর দিল। তার পরও রবির পড়ায় মন বসছেনা।কেন জানি আজ জুলির বুকের দিকে বার বার তাকাতে ভালো লাগছে রবির। এর আগে কখনো এমন হয়নি। আগে কখনো জুলি কিংবা নিহাকে নিয়ে এমন ভাবেনি রবি।আজ কেন যানি জুলির বুকের ভি সেপ গলা দিয়ে স্তনের ভাজটা দেখতেই রবির মাথা নষ্ট হযে গেছে। বার বার সেদিকে ই চোখ ছলে যাচ্ছে।

জুলিঃ=রবি আমার মাথাটা কেন যানি ধরেছে, একটু বাম নিয়ে আয়তো?

রবি কিছু না বসে সোজা উঠে গেল,একটা বাম এনে জুলির হাতে দিয়ে আবার বসে পড়লো।murrandk-2811জুলিঃ=তুইত আজ পড়চিস না,এদিকে আয় আমার মাথায় একটু মালিশ করে দে? কি আর করবে রবি? বাধ্য চেলের মত উঠে জুলির হাত থেকে আবার বামটা নিয়ে একটু বের করে জুলি কপালে লাগিয়ে মালিশ করতে লাগলো। জুলি তখন মাথাটা একটু পেচনে হেলান দিয়ে চোখ বন্ধ করে নিল। রবি ধিরে ধিরে জুলির কপালে গাড়ে মালিশ করতে লাগলো। পেচনে হেলান দেয়াতে জুলির জামার গলা দিয়ে ভেতরের অনেক খানি দেখা যাচ্ছে। এমন কি দুই স্তনের মাজখান দিয়ে নিছের দিকের অনেক খানি অনুভব করা যায়। রবির তখন মাথা খারাপ হবার পালা। জুলির গাড় মালিশ করতে করতে চোখের ক্ষুদা মেটাতে লাগলো রবি। হয়েছে এবার পড় গিয়ে জুলি বলল। রবি বলল আজ পড়তে ভালো লাগছে না দিদি আমি যাই?

রবি নিজের রুমে এসে ভাবতে লাগলো। জুলির পাগল করা রুপের নেশায় পুরু মাতাল হয়ে গেছে আজ রবি। এর আগে কখনো এমন করে ভাবেনি। আজ হঠাৎ কেন এমন হচ্ছে। জুলি তার আপন বোন। আপন বোনকে নিয়ে এমন ভাবা কি ঠিক? কিন্তু কি করবে রবি? মন থেকে আজ কিছুতেই সরাতে পারছেনা। বার বার জুলির খাড়া খাড়া স্তন দুটো চোখের সামনে ভেসে উঠছে। কম্পিউটারে বসে পর্নো দেখার মন চাইলো। তাও ভালো লাগছেনা। কেন যানি মনে হতে লাগলো এসব নেংটা মেয়েদের চাইতে চুরি করে জুলির স্তন দেখেই বেশি মজা পেয়েছে রবি। যদি জুলিকে পুরো নেংটা দেখে তাহলে হয়ত রবি পাগলই হয়ে যাবে। এসব ভাবতে ভাবতে ওদিক থেকে খাবার টেবিলে ডাক পড়লো।খাবার টেবিলে বসেও রবি খালি বারবারজুলির দিকেই তাকাচ্ছে। মন থেকে একটু আগের সেই চবিটা কোন রকমেই রবির সামনে থেকে সরাতে পারছেনা।

রবি জুলি নিহা, তিন জনই দোতলায় থাকে। ওদের বাবা মা নিচ তলায়। রবি আর নিহার রুমের দরজা একধম মুখামুখি। রবির রুম থেকে বেরুলে ডান পাশে বাথরুম।নিহার রুমের পাশে জুলির রুম। জুলি আর নিহা আগে একই রুমে ঘুমাত। এখন নিহা নাকি ঘুমের মাঝে বেশি গড়াগড়ি দেয়। তাই জুলি আর নিহার সাথে থাকেনা।যদি সবার রুম আলাদা, তবে তিনজনেই একই বাথ রুম ব্যবহার করে।দোতলায় আরো একটি বাথরুম আছে তবে সেটা একটু দুরে পড়ে। তার পরও যদি কখনো এই বাথরুমে কেউ থাকে তখন ওটাতেই যায়।

রবিদের বাড়িটা দোতলা। দোতলা বললে পুরোটা ঠিক হবেনা। কারন দোতলা উপরে আরো তিনটা রুম করা হয়েছে সিড়ি দিয়ে উঠার মুখে।অবশ্য কেউ থাকেনা সেখানে।নিচতলা আর দোতলায় থাকার মানুষই নাই। মোট পাচ জন কাজের লোক। সব আউট হাউসে থাকে।তিন জন মহিলা আর দুইজন পুরুষ।ঘরের ভেতরে আসার পারমিশন মাত্র দুজন মহিলার কাছে আছে।

রবি সারা রাত শুয়ে শুয়ে শুধু জুলিকে নিয়েই ভেবেছে।একটুও ঘুমাতে পারে নি।পর দিন সকাল বেলা কলেজে যাবার আগে জুলির কাছে গেল রবি। জুলি জানতে চাইলেঅ কিরে কিছু লাগবে? রবি বলল আমকে কিছু টাকা ধার দিবি দিদি?

জুলিঃ=মার কাছে চাইলেই পারিস, ধার নিতে হবে কেন?

রবিঃ=দিবি কিনা সেটা বল। এত বাহানা বানাতে হবেনা।

জুলিঃ=উলেলে একটু মজা করেই রবির চিবুকে হাত দিয়ে বলল এত রাগ? কত লাগবে বল?

রবিঃ= দুই হাজার টাকা থেকে পাচ হাজার।

জুলিঃ=কত লাগবে সেটাও জানিস না?

রবিঃ= তোর কাছে কত আছে সেটা অঅমি কি করে বলব?

জুলিঃ=ঠিক আছে, কবে পেরত দিবি?

রবিঃ=টাকা দেবার আগেই পেরত কবে দেব সেটা জানতে চাইছিস?

জুলিঃ=এমন আরো বহু বার নিয়েচিস, পেরত দিয়েছিলি কখনো?

রবিঃ= এবার আর তেমন হবেনা। এগুলা অবশ্যই পেরত দেব।

জুলিঃ= আগে বল কবে দিবি?

রবিঃ=দিয়ে দেব বলছিত দিদি। একটু এগিয়ে গিয়ে জুলির চেয়ারের পেচনে দাড়ালো। জুলির চুলে একটা হাত দিয়ে বিলি কাটতে কাটতে দেনা দিদি।

জুলিঃ=আর তেল মারতে হবেনা। দাড়া দিচ্ছি, বসে নিজের ব্যাগ থেকে তিন হাজার টাকা বের করে রবির হাতে দিয়ে বলল, তাড়াতাড়ি পেরত দিস, আবার আগের মত ভুলে যাসনা?

রবি একটু ঝুকে জুলির মুখে একটা চুমু দিয়ে, আই লাভ ইউ দিদি, বলে বেরিয়ে গেল। জুলি তার চলে যাওয়া পথের দিকে চেয়ে একটু হাসলো।

সেদিন রাতে পড়ার টেবিলে বসে আবার ও রবি জুলির দিকে তাকালো। আজ জুলি একটা টিশার্ট পরেছে। একটু টাইট হওয়ায় জুরি স্তনের বোটা একটু অনুভব করা যায়। রবি বার বার আড়র চোখে তা দেখতে থাকে।জুলি টের না পায় মত করে বার বার তাকায় রবি। কিন্তু জুলির চোখ এড়াল না বিষয় টা। জুলি উঠে গিয়ে একটা দোপাট্ট্রা নিয়ে গলায় পেছিয়ে সামনে ঝুলিযে দিয়ে আবার এসে বসে। এতে করে রবি বুঝতে পারে জুলি তাকে সন্দেহ করেছে, তার চোখের মতলব কিছুটা হলেও টের পেয়েছে জুলি তাই নিজেকে একটু সংযত রাখতে চেষ্টা করলো রবি।

রাতে শুয়ে শুয়ে সেই জুলিয়ে নিয়া ভাবনা। নিজের বোনকে নিয়ে এমন ভাবতে যদিও বার বার ইতস্ত ভোদ করছিল,তবুও এসব ভাবতে কেন যানি ভালো লাগছিল রবির। রাত বেশি হলে রবি উঠে বাথ রুমে যায়। আজ যে টাকা গুলা নিয়েছিল তা দিয়ে একটা ওয়েব কেমেরা কিনেছে ও। বাথরুমে ঢুকে দরজা বন্ধ করে ভাবতে থাকে কোথায় লাগানো যায়? কারো চোখে না পড়ে এমন জায়গায় লাগাতে হবে। হঠাত দেয়ালে লাগানো টিউব লাইটের দিকে চোখ টিউব লাইটের ভেতরে যদি সেট করা যায় তাহলে কেউ দেখবেনা। কিন্তু কিভাবে লাগাবে? লাইটের এক ভেতরে কেমেরাটা রেখে চোট্ট্র একটা হোল করে দিল। রুমে গিয়ে কম্পিউটারে চেক করলো ঠিক আছে কিনা। যেখানে লাগিয়েছে পুরা বাথরুমটা তার কেমেরার অধিনে আছে।লাইট টা লাগিয়ে দিয়ে এসে ঘুমিয়ে গেল রবি।

পরদিন সকাল বেলা রবি একটু জলদি উঠলো। যদিও প্রতিদিন আটটা কিংবা আরো পরে উঠে, আজ সে পর্য়ন্ত ঘুমাতে পারেনি। উঠেই কম্পিউটারে অন করে বসে রইলো। না এখনো কেউ আসছেনা দেখে নিজেই বাথ রুমে গিয়ে ফ্রেশ হয়ে এল। আবার এসে কম্পিউটারে বসতেই দেখতে পেল নিহা আসছে বাথরুমে। তাই কেমেরা অপ করে দিল। চাদে গিয়ে পায়চারী করছিল, অমনি জুলি সেখানে হাজির। কিরে এত জলদি উঠে গেলি? রোজত তোকে এই সময় ডেকেও উঠানো যেতনা। আজ কি হল? রবিবলল এমনিতেই ঘুম ভেঙ্গে গেছে তাই উঠে গেলাম। কেন কোন সমস্যা আছে নাকি?

নাস্তা খেতে বসেছে সবাই। জুলি বলল আমি গোসল করে পরে খাব তোমার খেয়ে নাও। রবির তখন মাথায় হাত। রেকর্ডিং চালু করে আসলেই ভালো হত। যাক পরে দেখা যাবে, নাস্তা খেয়ে বেরিয়ে গেল।

পরদিন চুটির দিন থাকায় সবাই বাসায়। বসে একসাথে আড্ডা দিচ্ছে। জুলির রুমে বসে তিনজন মিলে পাত্তা খেলছিল। জুলির স্তনের সাইজ যেন দিন দিন বাড়ছে। যত দিন যাচ্ছে জুলিকে আরো সুন্দরী দেখাচ্ছে। তিন জন গোল হয়ে বসে আছে একজনের হাটু অন্য জনের হাটুর সাথে লেগে আছে। এতে ই যেন বার বার শিহরিত হচ্ছে রবি।ইচ্ছা থাকা সত্বেও চুয়ে দেখতে পারছেনা। একটা কার্ড জুলির থাইয়ের উপর পেলল রবি। আবার নিজেই কার্ড উঠানোর চলে একটু চুয়ে দেখলো। আহ কি নরম। রবির থুথু গাড় হতে লাগলো। মুখ দিয়ে কথা বের হচ্ছে না। কখন কি কার্ড দিচ্ছে তাও খেয়াল নেই। জুলি আর নিহা রবির কান্ড দেখে হাসছে। একবার জিজ্ঞেস করেও কোন ফল পায়নি রবি। যদি ও রবি জানে কেন হাসছে ওরা।

নিহা বলল আর খেলবোনা। রবি ভাই আজ কি খেলছে মনে হয় নিজেও জানেনা। খেলা সমাপ্ত দিয়ে যার যার রুমে চলে গেল।তখন প্রায় দুপুর হতে চলেছে। রবি দেখতে পেল জুলি বাথরুমে যাচ্ছে। তাড়াতাড়ি দরজা বন্ধ করে কেম চালু করে বসে পড়লো কম্পিউটারের সামনে। জুলি বাথরুমে ডুকে দরজা বন্ধ করে দিয়ে একে একে সব কাপড় খুলতে লাগলো। টিশার্ট টা খোলার পর রবি যেন মাতাল হয়ে গেল দেখে। এত সুন্দর স্তন পর্নো নায়িকাদের হার মানায়। মনিটরে একটু চুয়ে দেখলো। উন্নত স্তন, বোটা দুটো গোলাফি রঙ্গের,একধম খাড়া হয়ে আছে। মন চাইছিল ধরতে। কিন্তু সেটাতো আর সম্ভব নয়। জুলি এবার নিজের পাজামাটা খুলে কমোডে গিয়ে বসলো। রবি দেখতে পাচ্ছে জুলির পুরো উলঙ্গ দেহ।এর পর জুলি উঠে শাওয়ারে দাড়ালো। শাওয়ার চেড়ে সারা শরিরে সাবান মেখে গোসল করতে লাগলো। কয়েক বার নিজেই নিজের স্তনে একটু করে টিপ দিল জুলি। রবি বুঝতে পারলো এতে করে জুলি আরাম পাচ্ছে। গুদে হাল্কা পশম আছে, তাতে সাবান মাখলো জুলি। ভালো করে হাত দিয়ে ডলে ফেনা তুলে পেলল। মাঝে মাঝে আঙ্গুল দিয়ে একটু একটু খোচা ও দিল জুলি গুদের ভেতর। রবি ভাবছে জুলি হয়ত কারো কাছে গুদ মারিয়েছে। মাঝে মাঝে স্তনের বোটা মলে দিল জুলি। জুলি আসলে ই কামাতুর। প্রায় পনের মিনিট পর জুলি টাওযেল দিয়ে শরির মুছে জামা কাপড় পরে বেরিয়ে গেল। রবি তখনো এনব নিয়ে ভাবছিল। জিবনে এমন লাইভ শো কখনো দেখেনি রবি। এই প্রথম এমন একটা সুন্দরী মেয়ের উলঙ্গ শরির লাইভ দেখে নিজেকে আর সংযত রাখতে পারছেনা।

এভাবে প্রায় প্রতিদিন জুলির গোসল করা দেখে রবি। কখনো এর চাইতে বেশি এগুতে সাহস হয়না। মাঝে মাঝে জুলির বুকের দিকে আড়চোখে তাকানো,বা জুলির পাচার দিকে তাকানো। এতটুকুই।

একদিন মাজরাতে রবি জুলির রুমে গিয়ে হাজির। হাল্কা লাল আলোয় আলোকিত রুম।জুলির মাথার কাছে এস দাড়ালো রবি। যেন সর্গের অপ্সরা শুয়ে আছে মনে হল। কি মায়াবি লাগছে জুলিকে। খাটের নিছে হাটু মুড়ে বসে দেখতে লাগলো রবি। যেন চোখ জুড়ায় না। একবার ভাবে হাত দেবে, কিন্তু পরক্ষনে হাত গুটিয়ে নেয়।আরো কিছুক্ষন এভাবে বসে থেকে সাস জুগিয়ে জুলির ঠোটে একটা চুমু দিল রবি। অমনি বিদ্যুত খেলে গেল যেন রবির শরিরে। তাড়াতাড়ি রুম চেড়ে বেরিয়ে এল রবি। জুলির ঘুম ভেঙ্গে গেছে। এটা কি জুলি কি সপ্নে দেখলো নাকি? তা মনে হয়না। কিন্তু কে হতে পারে? ঘরে তো আর কেউ নেই রবি চাড়া। কিন্তু রবি এমন করবে কেন? জুলির এখন আস্তে আস্তে মনে পড়তে লাগলো রবির এতদিনের কান্ড গুলা। তাহলে কি রবি এই নিয়ে ভাবছে? হয়ত তাই হতে পারে। ইতিমধ্যে রবির চোখে যেন একটা লালসা দেখতে পায় জুলি। তাহলে রবিই এসেছিল? কিন্তু এটা কি করে সম্ভব। ভাই বোনের মধ্য এমন সম্পর্ক ভাবাও পাপ। রবিকে পরখ করে দেখতে হবে। তার ভেতরে আসলে কি ভাবনা কাজ করছে?

ওদিকে রবি রুমে এসে শুয়ে শুয়ে ভাবছে জুলি কি টের পেল? না জুলি ত ঘুমে ছিল। জেগে থাকলে হয়ত একটা লাগিয়ে দিত গালে। জুলির ঠোট জোড়া কি মধুময় কি নরম, এই ভেবেই রবির বেহাল দশা। আবার যেতে মন চাইছিল, কিন্তু সাহস করতে পারলোনা।

পরদিন রাতে ঘুমাতে যাওয়ার সময় জুলি দরজা লক করে ঘুমায়। রবি তা বুঝতে পারে। রবি এখন শিওর জুলি কালকের ঘটনা টের পেয়েছে। নইলে দরজা লক করবে কেন? এমনত করেনা জুলি। রবি এখন প্রতিদিন রাতে শোবার সময় খেয়াল করে জুলি দরজা লক করে ঘুমায়। এখন আর জুলির গোসল করা দেখা চাড়া কোন পথ নেই। দিনের বেলাও জুলি আগের মত ফ্রি চলেনা রবির সাথে।

কিছুদিন পর জুলির জর হল। ডাক্তার ঔষধ দিলে একটু ভালোর দিকে। রাতে জুলির রুম থেকে ঘোঙ্গানোর শব্ধ আসে রবির কানে। রবি উঠে জুলির রুমে যায়। অসুস্থ থাকায় দরজা লক করেনি, কারন বাবা মা আসতে পারে তাকে দেখতে। রবি জুলির কপালে হাত দিয়ে বুঝতে পারে জর বেড়েছে। তাই বরফ নিয়ে আসে। একটা কাপড় ভিজিয়ে জুলির কপালে রেখে দেয়। আরেকটা পাপড় ভিজিয়ে জুলির গলা থেকে শুরু করে বুকের যে অংম টা খোলা আছে তাতে মুছে দিতে থাকে।জুলির হাত মোচড়ানো দেখে রবি জুলির একটা হাত আস্তে আস্তে টিপতে থাকে। কিছুক্ষন কপালে বরপ দেয়ার পর জর একটু কমতে লাগলো। জুলি এখন কথা বলছে। কিরে রবি তুই ঘুমাসনি। রবি বলল ঘুমিয়েছিলাম তোর আওয়াজ শুনে ঘুম ভেঙ্গে গেল।

জুলিঃ=মাকে ডাকলেই পারতি।

রবিঃ= কেন আমি কি তোর কোন সেবা করতে পারিনা?

জুলিঃ=আমি কি সেটা বললাম?তুই এখন ঘুমা গিয়ে। আমি এখন ভালো আছি।

রবিঃ=আগে তুই ঘুমা। তোর ঘুম আসলে আমি চলে যাব। আমাকে নিয়ে তোর ভাবতে হবেনা।

জুলিঃ=ঠিক আছে।

রবি বসে বসে জুলির হাতের আঙ্গুল টানছে, কখনো একটু একটু টিপে দিচ্ছে। এতে করে জুলির ঘুম আসছিল। রবি আস্তে আস্তে হাতের উপরের দিকে উঠতে লাগলো। যতই উপরে যাচ্ছে নরম মনে হচ্ছে। তাই আরো মজা করে টিপতে লাগলো রবি।তোর পায়ের আঙ্গুল টেনে দেব দিদি? রবি জিজ্ঞেস করলো। জুলি সম্মতি দিলো। রবি এবার উঠে পায়ের দিকে গিয়ে বসলো। পায়ের আঙ্গুল টেনে দিতে লাগলো। আস্তে আস্তে টিপতে লাগলো। জুলির মনে হয় ঘুম এসে গেছে। তবুও রবি থামছেনা। একটু একটু করে উপরে উঠতে লাগলো।যত উপরে যাচ্ছে তত যেন মজা পাচ্ছে রবি। থাইয়ের উপর হাত বোলাল রবি। জুলি ঘুম আসতে চেযেও আবার ভেঙ্গে গেল। জুলির বুঝতে বাকি রইলোনা রবি কি করতে যাচ্ছে। কিন্তু বাধা দিলনা। জুলিরও যেন ভালো লাগছে এসব। রবি ভেবেছে জুলি ঘুমিয়ে গেছে। আস্তে আস্তে টিপতে লাগলো জুলির একধম গুদের কাছ পর্য়ন্ত। মাঝে মাঝে জুলির গুদের বালের স্পর্স বুঝতে পারছে রবি। বারবার শিহরিত হচ্ছেও। কি আরাম মেয়েদের শরির টিপে আজ বুঝতে পারলো রবি। আরতো করে জুলির গুদের উপর হাত বোলালো রবি। একটা আঙ্গুল জুলির গুদের চেরার মধ্যে রেখে উপর নিছে করতেই জুলি উঠে বসে গেল। কি করছিস রবি। তোর কি লজ্জা শরম বলতে কিছুই নাই? রবি মাথা নিছু করে বসে রইলো। জুলি আবারো বলল কিরে কথা বলছিসনা যে? তু্ই এসব কি করছিলি বলবি আমায়। রবির কোন আওয়াজ নেই।জুলি বলল যা এখন কাল সকালে তোকে দেখবো।

রবি এবার মুখ খুলল। দিদি আমাকে মাফ করে দে। আমি ভুল করেছি। কিন্তু কি করবো বল। তোকে দেখলে আমার মাথা ঠিক থাকেনা।

জুলিঃ=মারবো এক চড় যা এখান থেকে?

রবিঃ=দশটা চড় মার দিদি, তবু আমাকে এভাবে কষ্ট দিশনা, নিজেও কষ্ট করিসনা।

জুলিঃ= গেলি এখান থেকে? আমি এখন মাকে ডাকছি।

রবিঃ=যাচ্ছি, তবে মনে রাখিস দিদি,আজ হোক কাল হোক তোকে আমি, বলে থেমে গেল রবি।

জুলিঃ= আমি কি? আমার শরির খারাপ না হলে আজ তোকে পিটিয়ে চামড়া তুলে নিতাম। শয়তান কোথাকর!

রবিঃ=তুই অসুস্থ না হলে আজই আমি তোকে চুদে চাড়তাম। বলেই রুম থেকে বেরিয়ে গেল রবি।

জুলি মাথায় হাত দিয়ে বসে রইলো। এসব কি বলছে রবি? এভাবে চলতে দেয়া যায়না। এর একটা বিহিত করতেই হবে। নইলে কখন জোর করেই আমাকে চুদে দেয়, তার কোন ইয়ত্তা নেই। কিন্তু কি করবে জুলি ভেবে কোন কিনারা করতে পারেনা। নিজেকে বড় ঘৃনা লাগছে জুলির এমন ভাই এর বোন হিসেবে। এ কেমন ভাই যে বড় বোনকে নিয়ে এসব ভাবে?

পরদিন সকাল বেলা রবি নাস্তার টেবিলে বসে নাস্তা খাচ্ছে। জুলি আসেনি, তাই মা নিহাকে ডাকতে পাঠাল। জুলি শরির এখন ভালো। তবু এলনা। রবির চোখাচোখি হতে ঘৃনা হচ্ছে জুলির। রবি নাস্তা সেরে চলে যাবার পর জুলি নিছে নামলো।

রবির মাথা পুরো নষ্ট হয়ে আছে। যেভাবে জুলির সাথে রাতে কথা বলেছে তা হয়তো ঠিক হয়নি। কিন্তু মনকে বোজাবে কি করে সে? জুলির এমন নাদুস নুদুস শরির দেখলে রবি যে আর নিজেকে সামলাতে পারেনা। একবার ভাবে জুলির কাছে ক্ষমা চেয়ে নেবে। আর কখনো এমন করবেনা বলে ওয়াদা করবে। আবার ভাবে এমন ওয়াদা করে কি রক্ষা করতে পারবে রবি? আর সব ওয়াদা রক্ষা করার জন্য করতে হবে এমন তো কোন কথা নেই। জুলি সকালে নিছে নামছেনা দেখেই রবি বুজে গেছে তার কপালে খারবি আছে। হয়ত মা বাবাকে বলে দিতে পারে সেই ভয়ও কাজ করছে। আবার এভাবে থাকলে রবি জুলির কাছেও ঘেসতে পারবেনা। তাই সিদ্ধান্ত নিল জুলির কাছে মাফ চাইবে। আবার আগের মত থাকবে। সময় মত একবার চুদে দিতে পারলেই হল। তার পর সব ঠিক হয়ে যাবে। রাত দিন চোদা খাবার জন্য মুখিয়ে থাকবে।

যেই ভাবা সেই কাজ। সন্ধা বেলায় জুলি নিজের রুমে বসে আছে। নিহা কোথায় জানি গেছে জানলো মায়ের কাছ থেকে। এখনই মোক্ষম সময় ভেবে জুলির রুমে গেল রবি। জুলির সামনে কান ধরে দাড়িয়ে রইলো। জুলি খেয়াল করেনি রবি কান ধরে দাড়িয়ে আছে।

জুলিঃ= এখানে কি করচিস? রবিকে ঢুকতে দেখে জুলি একটা বইয়ের পাতা উল্টাতে উল্টাতে বলে।

রবিঃ=আমাকে মাফ করে দে দিদি এই কান ধরলাম আর কোন দিন তোর সাথে এমন ব্যবহার করবোনা। জুলি নিরব বসে আছে দেখে রবি এবার জুলির পা ধরে কাদতে লাগলো আমাকে মাফ করে দে দিদি।

জলিঃ=তোর সাথে আমার কোন কথা নেই। তোর মত ভাই আমার দরকার নেই। যা এখান থেকে, আর ভুলেও আমার রুমে আসবিনা। আমি এখনো কাউকে বলিনি মানে এই নয় যে আমি এসব ভুলে গেছি। এখন এখান থেকে যা নইলে মাকে আর বাবাকে তোর লালসার কথা বলতে বাধ্য হব। রবি কেদেই যাচ্ছে।

রবি= আমি আর কোন দিন এমন করবোনা দিদি, যদি আবার এসব দেখিস তোর যে সাজা মন চায় আমাকে দিস। তবু আমার সাথে কথা বলা বন্ধ করিসনা। আমি তোর সাথে কথা বলা চাড়া কিভাবে থাকবো বল দিদি? আমার যখন যা দরকার হয় তোর কাছে চেয়ে নেই, তুই যদি আমার সাথে এমন করিস আমি কার কাছে যাব বল দিদি? এক ঘরে থেকে এভাবে আমার থেকে মুখ পিরিয়ে নিসনা। তুই আমাকে মার কাট যা করার কর। তবু এভাবে থাকিসনা। তোর নিরবতা আমার একধম ভালো লাগেনা।

রবির কান্না দেখে জুলির মন একটু নরম হল। বলল এখন যা পরে কথা বলবো তোর সাথে। রবি আবারো অনুরোধ করলো। জুলি বলল যা এবারের মত মাফ করলাম। রবি লাফিয়ে উঠলো। জুলিকে ধন্যবাদ জানিয়ে রুম থেকে বেরিয়ে গেল।

রবি এখন সুযেোগের অপেক্ষা করতে থাকে। মনে মনে বলে শালি যেদিন সুযোগ পাব সেদিন বুজবি রবি কি জিনিস? শালি যেদিন সুযোগ পাব তোর ভোদা পাটিয়ে রক্ত বের করা পর্য়ন্ত চাড়বোনা। আমার সাথে পাওয়ার দেখাও।

এভাবে দিন কাটতে থাকে,এখন রবি তেমন কিছু করার চেষ্টা করছেনা দেখে জুলি একটু ঠিক হয়ে এসেছে। রবি এখন জুলিকে বাথরুমে দেখা চাড়া তেমন কোন কিছু করেনা যাতে জুলি আবার সন্দেহ করে। মাজে মাজে জুলিকে গোসল করতে দেখে নিজের বাড়া খেছে মাল পেলে। এচাড়া আর কিইবা করার আছে রবির?

আজ রবি একটা চটি বই পড়ছিল। এমনিতেই সারা শরিরে আগুন লেগে আছে রবির। দরজাটা খোলাই ছিল, সামনে দিয়ে জুলিকে যেত দেখে তাকালো। একটা টাইট পেন্ট আর একটা গেঞ্জি পরেছে জুলি। হঠাত এক পলকের দেখায় বুজতে পারলো জুলির দুধের বোটা দুটো একটু গেঞ্জিটাকে চিঢ়ে বাইরে বেরিয়ে আসতে চাইছে। রবি বাইটা ছেড়ে জুলির পিছু নিল ভালো করে দেখার জন্য। চটি পড়ার চাইতে জুলির একটু চোয়া পেতে ভালেঅ বাসলো রবি। জুলি তখন নিজের রুমে গিয়ে খাটে হেলান দিয়ে বসেছে। রবি সামনে গিয়ে দেখলো আসলেই তাই। কি শরির বানিয়েছে শালি,শালির দুধ জোড়া দেখলে যে কোন পুরুষ চুদতে মরিয়া হয়ে উঠবে। শালি চোদাতে রাজি নাই তবু এমন কাপড় পরে সামনে ঘুরে কেন? আমার বাড়া খাড়া করানো যেমন তোর কাজ তেমনি সেটাকে আবার শান্ত করাও তোর কাজের শালি। এবার আর তোকে চাড়বোনা। তোর গুদ পাটানো এখন আমার দায়িত্ব হয়ে উঠেছে। আমি এই দায়ীত্ব থেকে কখনো পিছপা হবনা। দেখিস তোকে কিভাবে চুদি আমি। তোকে আমার চোদার পাগল বানিয়ে তারপর চাড়বো। এসব ভাবছিল মনে মনে। জুলি রবির হাবভাব লক্ষ করছে। রবি যে তার বুকের দিকে অপলক ছেয়ে আছে তা বুঝতে আর বাকি রইলোনা জুলির।

তখন রাত সাড়ে বারটা বাজে। একটা পাংশন থেকে পিরেছে জুলি। ঘরে ঢুকতে ঢুকতেই জামাটা খুলে পেলেছিল। এখন রুমে এসে কাপড় পাল্টাবে। কিন্তু রবিকে এভাবে দাড়িয়ে থাকতে দেখে জুলি বুজে গেছে রবির মনে এখনো কাম বাসনা রয়ে গেছে। রবি এখনো জুলিকে চুদতে চায়। এখন কি করা যায়। রবিকে বলল কিরে কিছু বলবি?

রবিঃ=তুই এতক্ষন কোথায় চিলি দিদি? তোকে না দেখে মাকে জিজ্ঞেস করলাম মাও কিছু বলতে পারলোনা। তাই তোকে দেখে চুটে এলাম।

জুলিঃ= আমি একটা পার্টিতে গিয়েছিলাম। তুই এখন যা, আমি চেঞ্জ করবো।রবি ওকে বসে চলে এল। কারন এখনো মা বাবা নিহা সবাই জেগে আছে। সামান্য আওয়াজ হলে কাম সারা।

রবি রুমে এসে ভাবতে লাগলো। আজ শালিকে না চুদে ছাড়ছিনা। খালি দরজাটা খোলা রাখলেই হল। জোর করেই চুদে দেব আজ। এচাড়া আর কোন পথ নেই। যে মেজাজ দেখিয়ে ছলে তাকে এমনে বসে আনা জাবেনা। রুম থেকে বার বার বেরিয়ে জুলির হাব বাভ দেখে আসে রবি। রাত দুটা বাজে। সবাই ঘুমিয়ে গেছে। শুধু রবি এখনো জেগে আছে। রবির যে ঘুম আসছেনা বাড়াটাকে ঘুম পাড়ানো চাড়া।

রবি উঠে গিয়ে জুলির রুমের দরজাটা আন্তে করে খুলতে চেষ্টা করলো। দরজা খোলাই ছিল। রুমে ঢুকে আবার দরজাটা বন্ধ করে দিল রবি। ধির পয়ে জুলির শিয়রে গিয়ে দাড়ায়। অপলক চেয়ে থাকে জুলির বুকের দিকে। বোটা দুটো এখনো বেরিয়ে আসতে চাইছে। আবছা অন্ধকারে ভালোই দেখা যাচ্ছে। দুধ দুটো বেশ বড় মনে হচ্ছে এখন। ধরতে গিয়ে আবার পিছু সরে আসে। আবার নিজেকে নিজে সাহস দেয়। এবার আর দেরি করেনা রবি। একটা বোটা একটু করে মুছড়ে দেয়। জুলি একটু নড়ে উঠে। হাত সরিয়ে নেয় রবি। আবার একটু পর জুলির একটা দুধে হাত দিয়ে আলতো করে হাত বুলিয়ে দেয়।এতে জুলির কোন সাড়া নেই। হাল্কা চাপ দেয় রবি। জুলি আবারো নড়ে উঠে। রবি মনে মনে বলে শালির ঘুম এত পাতলা কেন? হাত দিতেই নগে উঠে? তাও পিছপা হয়না রবি। এবার একটু জোরে টিপ দিতেই জুলি উঠে বসে যায়। রবির গালে ঠাস করে একটা চড় বসিয়ে দেয় জুলি।

জুলিঃ= তুইনা ভালো হয়ে গিয়েছিস? কর্কষ কন্ঠে জুলি বলে ।

রবিঃ=তুই আজ যত দোহাই দিসনা কেন তোকে আজ আর ছাড়ছিনারে দিদি। আজ অনেক দিন থেকে তোকে চোদার প্লান করে বসে আছি। সুযোগ পাইনা। আজ তোকে চুদেই চাড়বো বলে জুলিকে ঝাপটে ধরে রবি।জুলি আপ্রান চেষ্টা করে চাড়া পেতে, কিন্তু পারেনা। চিৎকার করছেনা জুলি। বাবা মা জানলে নিজের ও অপমান হবে। কারন মা বাবা বার বার ওকে এমন সব সেক্সি ড্রেস পরতে নিষেধ করেছে। চাড়া না পেয়ে জুলি এবার বলল এসব পাপরে রবি। এমন পাপ করিসনা।

রবিঃ= পাপ পুন্য জানিনা, তবে আজ তোর ভোদা পাটিয়েই চাড়বো।

জুলিঃ= ভাই বোনের এমন সম্পর্ক মানায় না। রবি আমাকে চেড়ে দে।

রবিঃ=আমি জানি, তবে এসব আমি মানিনা। তুই আমার সাথে এসব না করলেও অন্য কারো সাথে করবি। আমি তোর সাথে না করলে অন্য কারো সাথে করবো। দুজনেই বাইরে তালাশ করার চাইতে ঘরে ঘরে আমি মনে করি আরো ভালো। কেউ জানবেও না। বাইরে কারো কাছে লজ্জা পাবার ও ভয় থাকছেনা।

জুলিঃ=তুই এসব কি বলছিস?

রবিঃ= আমি ঠিকই বলছি। আমার তোকে খুব ভালো লাগে তাই নিজেকে সামলাতে পারিনা।এই বলে জুলির বুকের উপর ঝাপড়ে পড়লো। আমাকে পিরিয়ে দিসনা দিদি। আমি আজ অনেক দিন ধরে তোকে নিয়ে ভাবি। তোর এই শরির আমাকে পাগল করে দিয়েছে। দেখবি তোর ও ভালো লাগবে। বলে জুলির একটা স্তনে হাত দিয়ে টিপতে লাগলো। জুলি সরাতে চেষ্টা করেও বিপল। রবি আরো একটু এগিযে গিয়ে জুলির ঠোট জোড়া নিজের মুখে ভরে নিয়ে চুষতে লাগলো। পালা করে দুটো স্তন জোরে জোরে টিপতে লাগলো। জুলি প্রান পনে চেষ্টা করেও পারলোনা। রবি জুলির বুকের উপর শুযে তার স্তন জোড়া পিশে পেলছে। আর ঠোট জোড়া লজেন্সের মত করে চুষছে। রবির বাড়াটা তখন পাতলা পেন্ট টাকে তাবু বানিয়ে পেলেছে। খোছা মারছে তখন জুলির ভোদার খাজে। রবি এবার জামাটা একটু উপরে তুলে ভেতরে হাত ঢুকিয়ে দিল। আহ কি মোলায়েম। আগে কখনো এমন হবে বলে ভাবেনি রবি। বোটাটা একটু মলে দিতেই জুলি ককিয়ে উ ঠলো। বন্ধুরা গল্পের পরবর্তী অংশ পড়তে:


The post ভগ আমার কুক্কুট বোন-1 appeared first on Mastaram: Hindi Sex Kahani.




ভগ আমার কুক্কুট বোন-1

No comments:

Post a Comment

Facebook Comment

Blogger Tips and TricksLatest Tips And TricksBlogger Tricks